চকরিয়া পৌর এলাকায় ১ মাসের বকেয়া বাসা ভাড়ার জন্য ভাড়াটিয়ার উপর হামলা, বাবা ও ২ ছেলে আহত

IMG_20200524_000730

চকরিয়া অফিস:

চকরিয়া পৌর এলাকায় বাসা বাড়ির ১মাসের বকেয়া ভাড়ার জন্য সন্ত্রাসী প্রকৃতির জমিদারের নেতৃত্বে ধারালো অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে ভাড়াটিয়ার উপর অতর্কিত দু’দফায় হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় বাসার ভাড়াটিয়া ও তার দুই ছেলে গুরুতর আহত হয়েছে।২৩ মে বিকাল সাড়ে ৩টায় থানা সেন্টার বাদল মার্কেটের অফিসে ও ভাড়া বাসা স্বপ্নপুরী ক্লাবের পাশ্বে এ ঘটনা ঘটেছে। এনিয়ে বাসার অন্যান্য ভাড়াটিয়া ও স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ ও উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।
অভিযোগে জানাগেছে, চকরিয়া পৌরসভা ৩নং ওয়ার্ডের স্বপ্নপুরী ক্লাবের পাশ্বে মৃত আহমদ শফির পুত্র শাহাদাত হোসেন কালুর বাসার একটি ফ্লাটে বিগত ৫ বছর ধরে ভাড়া থাকেন থানা সেন্টারের বিশিষ্ট রাইটার সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী মোঃ রেজাউল করিম। বর্তমান করোনার মহামারিতে মাত্র এক মাসের বাসা ভাড়া বকেয়া রয়েছে। কিন্তু ভাড়ার উক্ত টাকার জন্য গত কয়েকদিন ধরে চাপ সৃষ্টি করে আসছেন বাসার মালিক কালু। সর্বশেষ ঘটনারদিন বিকেলে ভাড়ার টাকা পরিশোধের সময় নির্ধারণ ছিল। কিন্তু কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই অভিযুক্ত বাসার মালিক শাহাদাত হোসেন কালু লোকজন নিয়ে ২৩ মে বিকাল সাড়ে ৩টায় রেজাউল করিমের থানা সেন্টার বাদল মার্কেটের অফিসে ঢুকে ধারালো অস্ত্র শস্ত্র দিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। রেজাউল করিম (৬০) মারধরকালে তার ছেলে জগন্নত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাপনী বর্ষের ছাত্র হোছাইন মোঃ সাইফুল্লাহ রেজা মিশু (২৪) এগিয়ে গেলে তাকেও মারধরে আহত করে। পরে ১৫ মিনিট পর বাসায় গিয়ে ২য় দফায় একই বিষয়ে হামলা চালায় ঝগড়াতে বাসার মালিক শাহাদাত হোসেন কালু। এসময় ছোট ছেলে হাজী মোঃ মহসিন কলেজের ছাত্র ইয়াছিন রেজা নিপু (২২) গুরুতর আহত হয়।বাসায় ভাংচুরও চালানো হয়।স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।
হামলার শিকার বাসার ভাড়াটিয়া রেজাউল করিম জানান, সামান্য ১মাসের বাসা ভাড়ার জন্য বাড়ি মালিক কালু এতবড় একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা করবেন তা কিছুতেই বুঝে আসতেছেনা।অথচ বাসার অন্তত ২০ টি ফ্লাটের মধ্যে অন্য ভাড়াটিয়ারা দেন ৪হাজার/সাড়ে ৪হাজার টাকা করে, কিন্তু তিনি (রেজাউল করিম) দেন সাড়ে ৫হাজার টাকা ভাড়া। তা বিগত ৫বছর ধরে দিয়ে আসছেন। এনিয়ে তিনি মামলার প্রস্তুতি নিয়েছেন বলে জানান। বাসার অন্যান্য ভাড়াটিয়ার জানিয়েছেন,শাহাদাত হোসেন কালু একজন ঝগড়াতে লোক। প্রতিনিয়তই ভাড়াটিয়াসহ স্থানীয়দের সাথে বিরোধ ও ঝগড়া করে থাকেন। যার কারণে কেউ মুখ খোলে প্রতিবাদ করার সাহস পায়না।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, ঘটনার বিষয়ে মৌখিকভাবে জেনেছেন, তবে এখনো কেউ লিখিত অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, বর্তমান করোনার মহামারি ও লকডাউনে মাত্র ১মাসের বাসা ভাড়ার জন্য যে ঘটনাটি করেছেন তা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক। যা কিছুতেই কাম্য নয়। তিনি তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান।

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।