চকরিয়ায় নারী ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা মামলা অমান্য করে জমি দখল চেষ্টাসহ দলিল জালিয়তির অভিযোগ

IMG_20200602_194230

স্টাফ রিপোর্টার:

চকরিয়া পৌর এলাকায় উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস-চেয়ারম্যান জেসমিন হক জেসির বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার করে কক্সবাজার যুগ্ম জেলা জজ ২য় আদালতের বিচারাধীন ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের ১৪৪ ধারার নিষেধাজ্ঞার মামলা উপেক্ষা করে দলিল জালিয়তিসহ এক ব্যবসায়ীর জমি ও দোকানপাট জবর দখল চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। গত ১জুন দুপুরে এ ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে ভূক্তভোগী জমি ও দোকান মালিক বিজ্ঞ আদালতসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অভিযোগে জানাগেছে, চকরিয়া পৌরসভার ভরামুহুরী এলাকার বাসিন্দা মৃত মোহাম্মদ কালুর ছেলে আলী হোসেনের মালিকানাধীন ভরামুহুরী মৌজার বিএস ২৮৮, ২৮৭ ও ২৯৭ দাগের আন্দরের ১৯ শতক জমিতে বানিজ্যিক স্থাপনা নির্মাণের লক্ষ্যে বিগত ৫ জানুয়ারী’ ২০০৪ ইং ইজারা চুক্তি ও ১৪আগষ্ট’২০০৫ইং ৫৬৯২নং এবং একইদিন ৫৬৯১নং রেজিষ্ট্রাট ইজারা চুক্তিমূলে ৯৬ বছরের জন্য জমি লাগিয়ত নেন স্থানীয় ভরামুহুরী এলাকার মরহুম হাজী আহমদ শফির পুত্র আলহাজ্ব নুরুল হোসাইন। ইজারা প্রদানকালে ২লাখ ৬৫ হাজার টাকা এবং প্রথম রেজিস্ট্রাট ইজারা চুক্তি কালে ২লক্ষ টাকা ও ২য় রেজিস্ট্রাট ইজারা চুক্তি কালে ৮লাখ ৫০হাজার টাকা অগ্রিম গ্রহণ করেন। এরপর থেকে রেজিঃ ইজারা চুক্তি মোতাবেক গ্রহীতা হাজী নুরুল হোসাইন সম্পূর্ণ নিজ অর্থ ব্যয়ে জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণ, মিলকারখানা স্থাপন, নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে পৌর হোল্ডিং ট্যাক্স ও বিভিন্ন কর ইজারা গ্রহীতা হিসেবে আদায় করে আসছেন। উক্ত ৯৬ বছর পর্যন্ত চুক্তি মেয়াদের কারণে বিপু্ল প্রায় ৩কোটি টাকা ব্যয় করে আল মদিনা অটো রাইচ মিল, চকরিয়া স্টীল মাট, মেসার্স হোসাইন স্টীল মাট এবং চাউলের গুদাম, চাউলের শোরুম ও লাকড়ির মিলসহ বিভিন্ন প্রকারের ব্যবসায় অর্থ বিনিয়োগ করে আসছেন। আলী হোসেনের সাথে তিনটি তফসীলে তিনটি ইজারা চুক্তি ছাড়াও জমির অপর ওয়ারিশ আলী হোসেনের ভাই আবদু শুক্কুরের কাছ থেকে বিগত ১০সেপ্টেম্বর’১১ইং তারিখ চকরিয়া সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের ৬৩৩২ নং রেজিষ্ট্রাট দলিল মূলে ভরামুহুরী মৌজার বিএস দাগ নং ২৯৯ ও ২৮৮ থেকে ৫.৮৮শতক জমি রেজিষ্ট্রি নেন হাজী নুরুল হোসেন। এরপর তিনি চকরিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়ে নামজারী জমাভাগ ৯৮১নং বিএস খতিয়ান সৃজন করেন।

হাজী নুরুল হোছাইন স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, স্থানীয় মৃত এস.আই চৌধুরীর মেয়ে ও উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন হক জেসি চৌধুরী জমি মালিক আলী হোসেনের কাছে থেকে বিগত ২৭মে’১৫ইং ২৭৮৮ নং আমমোক্তারনামা মূলে ১ একর ৩৩ শতক জমির রক্ষনা বেক্ষনের কথিত দায়িত্ব নেন। এরপরও আমমোক্তারনামা নিয়ে আমার আপাততে কোন অভিযোগ নাই। কিন্তু চকরিয়া সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সৃজিত বিগত ২৭মে’১৫ইং ২৭৮৮ নং অফেরৎযোগ্য আমমোক্তারনামাকে জালিয়তি করে কম্পিউটার থেকে ডুপ্লিকেট আমমোক্তারনামা দলিল বানিয়ে ১ একর ৩৩ শতক জমির স্থলে আরো ১একর জমি বাড়িয়ে ২ একর ৩৩শতক করে ভূমি অফিস থেকে বিএস খতিয়ান সৃজন করেন জেসি চৌধুরী। এছাড়াও মূল দলিলে বিএস দাগ নং ২৯৭ না থাকলেও ফেরবী ও জালিয়তি দলিলে বিএস ২৯৫ দাগ ভুঝিয়ে ২৯৭ দাগ করেন। ফলে ওই ২৯৭ দাগ নিয়ে আমার ভোগ দখলীয় জমিতে অবৈধভাবে হস্তক্ষেপসহ জবর দখলের নানাভাবে হুমকি দেন। হাজী নুরুল হোছাইন অভিযোগ করে আরো জানান, এঘটনায় জেসমিন হক জেসি চৌধুরীসহ ১০জনকে বিবাদী করে চলতি সনের ১৬মার্চ কক্সবাজার যুগ্ম জেলা জজ ২য় আদালত অপর মোকাদ্দমা নং ১৩৫/২০২০দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এছাড়াও দখল চেষ্টা অব্যাহত রাখায় জমিতে ১৪৪ধারার আদেশ চেয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত কক্সবাজারে এমআর মামলা নং ৪০৮/২০২০ দায়ের করেন। ওই মামলায় আগামী ১৫জুলাই ২০ইং এর মধ্যে চকরিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি)কে সরে জমিনে প্রতিবেদন দেয়ার এবং চকরিয়া থানাকে শান্তিশৃংখলা বজায় রাখার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। সর্বশেষ গত ১জুন’২০ইং দুপুর ১২টার দিকে প্রকাশ্যদিবালোকে ভাড়াটিয়া বাহিনী এনে রাইচ মিল ও স্টীল মিলের প্রবেশপথে গ্রীলের দরজা আটকিয়ে দিয়ে জমি জবর দখল করে নিয়েছে। ফলে উক্ত গৃৃহে প্রায় ২কোটি টাকার মালামাল ও যন্ত্রপপাতি রয়েছে। বিষয়টি তিনি থানা পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করেছেন বলে জানান। ইতিপূর্বেও ঘটনার প্রতিকার চেয়ে আদালতে মামলা দায়ের করার পাশাপাশি পুলিশ ও আইন শৃংখলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থার কাছে লিখিত অভিাযোগ জানিয়েছেন। এরপরও অভিযুক্ত নারী ভাইস-চেয়ারম্যান জমি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিককে হুমকী-ধমকী প্রদানসহ নানাভাবে হয়রানি অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। ভূক্তভোগি হাজী নুরুল হোসেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ পূর্বক সুবিচার প্রার্থনা করেছেন।

এ ব্যাপারে চকরিয়া উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান জেসমিন হক জেসি প্রতিপক্ষের উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করেন। দুর্লোভের বশীভূত হয়ে তার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করা হচ্ছে বলে দাবী করেন।

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।