চকরিয়ায় মসজিদে আদিপত্ত্য নিয়ে চিংড়ি জোনের অস্ত্রধারী দস্যুদের হামলা, গুলিবিদ্ধসহ আহত ৫

received_2535735766676490

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ
চকরিয়ায় মসজিদে আদিপত্ত্য নিয়ে চিংড়ি জোনের অস্ত্রধারী দস্যুদের হামলা,গুলিবিদ্ধসহ আহত ৫জন গুরুতর আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে সাদ্দাম নামে গুলিবিদ্ধ যুবককে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বুড়িপুকুর পশ্চিমপাড়া মা আয়েশা জামে মসজিদের সামনে গত ১৯জুন (শুক্রবার) বেলা ২টার দিকে ঘটেছে এ ঘটনা। এনিয়ে এলাকায় ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।
প্রাপ্ত তথ্যে ও অভিযোগে জানাগেছে, পবিত্র রমাজান শুরুর ২দিন পূর্বে মসজিদের সামনে ইমামকে গালমন্ধ করে স্থানীয় গরু চোরে চিহ্নিত জামালের ছেলে নজরুল। ইমামকে গালমন্ধের বিষয়ে প্রতিবাদ করেন জামালের বড় ভায়রা আজিজুর রহমান। প্রতিবাদ করায় ওই সময় জামালের ছেলে নজরুল ও আবছারের নেতৃত্ব খালু আজিজুর রহমানকে মারধর করে। পরে আজিজুর রহমানের ছেলেরা আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকে হামলা ও ইমামকে গালমন্ধকারীরা মসজিদে আসেনি। ঈদের ২দিন পর হামলাকারী জামাল গং মসজিদে আসলে মসজিদে আজিজ গংয়ের দেয়া দুইটি লাইট আকর্ষ্মিকভাবে নষ্ট করে দেয়। মসজিদে মুসসল্লীদের নিয়ে কথা চলাকালে স্থানীয় মৌলভী সেলিম ও মসজিদের ইমাম আবদুল্লাহ উক্ত ঘটনার সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দেন। সর্বশেষ গত ১৯জুন জুমার নামাজের পর বৈঠক হয়। বৈঠকে সন্ত্রাসী জামাল গংকে দোষী সাব্যস্থ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে শালিস বৈঠকের কিছুক্ষণ পর সওদাগরঘোনা এলাকা থেকে ৩০/৪০জনের অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ভাড়া করে এনে আজিজুর রহমানের উপর হামলা চালায়। বাবাকে বাঁচাতে ছেলে আবু ছালাম সাদ্দাম এগিয়ে আসলে তাকে প্রাণে হত্যার চেষ্টায় তার বুক লক্ষ্য করে উপর্যপুরী গুলি ছুড়ে শরীর ঝাঝড়া করে দেয়। তার পড়ে থাকা দেহ উদ্ধার করতে গিয়ে মা-ভাইসহ আরো ৪জন আহত হয়। আহতরা হলেন; আজিজুর রহমানের ছেলে গুলবিদ্ধ আবু ছালাম সাদ্দাম (২৬) ও আবু সৈয়দ (৩০), তাদের পিতা আজিজুর রহমান (৫৮), মা ছাবেরা বেগম (৫০), প্রতিবেশি মরহুম মোঃ কালু সিকদারের পুত্র নজির আহমদ (৬০)। আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ মুমুর্ষ সাদ্দামকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময়ও বাধা দেয় হামলাকারীরা। পরে কোন রকম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌছালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে আশঙ্খাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

হামলাকারী অস্ত্রধারীদের মধ্যে রয়েছে; হুকুমদাতা- মৃত আবদুল কাদেরের পুত্র জামাল উদ্দিন, চিহ্নিত সন্ত্রাসী অসংখ্য ডাকাতি হত্যা মামলার আসামী মৌলভী হোসাইনের পুত্র মোহাম্মদ ইউসুছ, সন্ত্রাসী দলিলুর রহমানের পুত্র গিয়াস উদ্দিন, মৌলভী জাফর আলমের পুত্র মোঃ ইলিয়াছ, তার পিতা মৌলভী জাফর আলম, জামাল উদ্দিনের পুত্র নুরুল আবছার, মিজান, নুরুল ইসলাম ও নজরুল, মৌলভী হোসাইনের পুত্র ইমন ও বদাইয়া, ইমনের পুত্র মিজান, গোলালের পুত্র নবী হোসেনসহ ৩০/৪০জনের অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী বাহিনী। বর্তমানে ওই ঘটনায় কোন মামলা করলে ফের হামলাসহ স্বপরিবারে প্রাণে হত্যার হুমকি অব্যাহত রেখেছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন চিরিঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জসিম উদ্দিন।

চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, ঘটনার বিষয়ে খবর পাওয়ার পর ওই এলাকায় পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ঘটনার বিষয়ে আজিজুর রহমান বাদী হয়ে লিখিত এজাহার দিয়েছেন। তা মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে।

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।