বদরখালীতে মহামান্য হাইকোর্টে নিষেধাজ্ঞার আদেশ উপেক্ষা করে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়ে জমি জবর দখলের চেষ্টা

চকরিয়া অফিস:
মহামান্য হাইকোর্টে, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট এর মামলা নং ৩০৩৬/১৯ এর নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে আইনের সীমা লঙ্গনের অভিযোগ উঠেছে। মহামান্য হাইকোর্টের মাননীয় বিচারপতি এসআর এম নাজমুল আহসান ও মাননীয় বিচারপতি কেএম কামরুল কাদের উক্ত নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন।
অভিযোগ জানাগেছে, চকরিয়া উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের বদরখালী ডিগ্রী কলেজ সংলগ্ন উত্তর পাশে^ মরহুম ডা: আবুল কাদেরের পুত্র জসিম উদ্দিন গং এর পৈত্রিক ৮০শতক জমিতে মরহুম জহিরুল ইসলামের পুত্র সিরাজুল হকের প্ররোচনায় পাশের্^র ভাড়াটিয়া জনৈক শিল্পী ইসহাক সম্পূর্ণ অবৈধ পন্থায় মহামান্য হাইকোর্টে, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট এর (মামলা নং ৩০৩৬/১৯) নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে সিরাজুল হক ও তার ছেলে ফেরারী আসামী আবু বক্কর তাদের নিজস্ব বাহিনী নিয়ে বৃদ্ধা জমি মালিক জসিম উদ্দিনের মা ও পরিবারের সদস্যদের প্রতিনিয়ত হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে। জীবন জীবিকার প্রয়োজনে জসিম উদ্দিন গং বাড়িতে অবস্থান না করাতে তাদের পরিবার জীবন মৃত্যুর চরম ঝুকিতে রয়েছে। সিরাজুল হক ও আবু বক্কর বাহিনীর প্ররোচনায় জসিম উদ্দিন গংয়ের পৈত্রিক জমিতে অবৈধভাবে জবর দখলে নিতে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সর্বশেষ গত ২৫ জুলাই’ ২০ইং (শনিবার) ভোরে সিরাজুল হক ও তার ছেলে ফেরারী আসামী আবু বক্কর ১০/১৫জন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী লোকজন নিয়ে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণের চেষ্টা চালায়। জসিম উদ্দিন গং প্রতিবেশী থেকে খবর পেয়ে এলাকার লোকজন নিয়ে এগিয়ে গেলে দখলবাজরা পালিয়ে যায়। উল্লেখ্যযে, বিগত ২০১৯ সালের মার্চ মাসে জসিম উদ্দিন গং মহামান্য হাইকোর্টে, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট থেকে জমির উপর উক্ত নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন। কিন্তু শিল্পী ইসহাকের পরিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জসিম উদ্দিন গংয়ের পরিবার নিয়ে মানহানীকর কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করে এবং সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চালায়। তারা মাননীয় প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন এবং আইসিটি ধারা মোতাবেক প্রকৃত দোষীদের কঠোর শাস্তি প্রদান করার জন্য আকুল আবেদন জানান।##

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।