চকরিয়ার বমূবিলছড়িতে জমি জবর দখলে নিতে হামলা,শিশুসহ আহত ৩

received_297571018326761

চকরিয়া প্রতিনিধি:
চকরিয়া উপজেলার বমুবিলছড়িতে বিক্রিত জমি জবর দখলে নিলে বিক্রেতা পক্ষ ভাড়াটিয়া লোকজন নিয়ে ভোগদখলদার ক্রেতা পক্ষের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় ওই পরিবারের ২ শিশুসহ ৩জন আহত হয়েছে। গত ২৬ জুলাই দুপুর ১টায় ও ২৭জুলাই সকাল ১১ঘটিকার দিকে ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ভিলেজারপাড়া গ্রামে ঘটেছে এ ঘটনা।
চকরিয়া উপজেলার বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ভিলেজারপাড়া গ্রামের আবু তাহেরের স্ত্রী বেবী আক্তার (৩১) বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত এজাহার দায়ের করেছেন। এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে; মৃত শামসুল আলমের পুত্র মনছুর আলম ও মো: মামুন, স্ত্রী নুর জাহান বেগম, মহিউদ্দিনের স্ত্রী লায়লা বেগম, শামসুল আলমের পুত্র আবদুল মজিদ ও মহিউদ্দিনসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে।
অভিযোগে জানাগেছে, বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ভিলেজারপাড়া গ্রামে উল্লেখিত মৃত শামসুল আলমের পুত্র মনুছুর আলম ও স্ত্রী নুর জাহান বেগমের কাছ থেকে বিগত ১০ নভেম্বর’১৩ইং তারিখে ১০শতক জমি খরিদ করেন আবু তাহেরের স্ত্রী বেবী আক্তার গং। এছাড়া বিগত ১৪ নভেম্বর’১৩ইং তারিখে ৪০শতক নাল জমিও খরিদ করেন এবং শান্তিপূর্ণ ভোগ দখলে রয়েছে। কিন্তু জমি বিক্রেতারা উক্ত জমি থেকে উচ্ছেদ করতে ২৬ জুলাই দুপুর ১টায় প্রথম দফায় ও ২৭জুলাই সকাল ১১ঘটিকার সময় দ্বিতীয় দফায় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে হামলা ও ভাংচুর চালায়। হামলায় আহত হয়েছেন জমি ক্রেতা গৃহকত্রী বেবী আক্তার (৩১), শিশু ছেলে ফয়সাল (৭) ও মুন মুন জন্নাত (১১)কে। হামলাকালে ভাংচুরে ১৫ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ভাংচুরে ২০ হাজার টাকা, কোরবানীর জন্য রক্ষিত ২০ হাজার টাকা ও ২৭ হাজার টাকা মূল্যমানের ৮ আনা ওজনের স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়। উল্লেখিত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নানান অপরাধে থানা ও আদালতে বিভিন্ন মামলাও চলমান রয়েছে। ভূক্তভোগী পরিবার প্রশাসনের কাছে আইনী সহায়তা চেয়েছেন।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, ঘটনার বিষয়ে বেবী আক্তার বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য থানার উপপরিদর্শক নয়ন চাকমাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সত্যতা পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।##

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।