চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সংবাদ সম্মেলন, হারবাংয়ের চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র করছে

IMG_20200826_171455
উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সংবাদ সম্মেলন
ইউপি চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে নানা অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রমুলকভাবে হয়রানী করছে

হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলামকে জড়িয়ে নানা অপপ্রচার, মিথ্যা মামলা ও ষড়যন্ত্রমুলকভাবে হয়রানী করছে বলে অভিযোগ করেছেন চকরিয়া উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ। ঘটনারদিন ইউপি চেয়ারম্যান নিজে চট্টগ্রাম থেকে ফিরছিলেন। মা-মেয়েকে নির্যাতন করছে এমন খবর পেয়ে দ্রুত পরিষদে এসে রশির বাধন খুলে চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করিয়েছেন।

মুলত আগামী ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচন নিয়ে একটি মহল অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারাই গণমাধ্যম বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে দিচ্ছেন। ২৫ আগষ্ট মঙ্গলবার বিকাল তিনটার ফাঁশিয়াখালী এটিএন পার্র্কে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সভাপতি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফাঁশিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, হারবাং ইউনিয়ন একটি সামাজিক, সাংস্কৃতি ও সকল সম্প্রদায়ের বসবাস। সেখানে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টির বসবাস রয়েছে। বিগত ইউপি নির্বাচনে বিএনপি-জামাত সমর্থিত প্রার্থীকে পরাজিত করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মিরানুল ইসলাম। তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে বর্তমান সরকারের নানা উন্নয়নমুলক কর্মকান্ড তৃনমুল পর্যায়ে পৌছে দিচ্ছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান তৃনমুল থেকে বেড়ে উঠা একটি নাম। তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে দল এবং পরিষদের নারী ও পুরুষ মেম্বারদের নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হারবাং ইউনিয়নকে সাজাচ্ছেন। সম্প্রতি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সম্মেলনে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের পূনরায় সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র করে আসছেন দলের কিছু নেতা।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, শুক্রবার বিকালে হারবাং মা-মেয়ে নির্যাতনের ঘটনার সাথে চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম বিন্দুমাত্র জড়িত নয়। ওইদিন তিনি চট্টগ্রাম থেকে ফিরছিলেন। সংঘঠিত ঘটনার বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যানকে মোবাইলে জানানোর পর তিনি দ্রুত পরিষদে আসেন। সেখানে তিনি মা-মেয়ের রশির বাধন খুলে দিয়ে জনতার হাত থেকে উদ্ধার করেছেন। পরে তাদেরকে চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করান তিনি। চিকিৎসা শেষে তাদেরকে হারবাং পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ নিয়ে যায়।
কিন্তু ঘটনার একদিন পর একটি মহল তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন। সামাজিক, রাজনীতিক ও পারিবারিকভাবে হেয় করতে এসব অপপ্রচার করছেন বলে দাবী করছেন তারা। যা আপনারা দেখেছেন। এধরণের সংবাদ থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, চকরিয়া উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সভাপতি ও ফাঁশিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী, চিরিঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন ও হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম

, বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।