চকরিয়ায় বাঁশ ব্যবসাকে কেন্দ্র করে হামলা, মৃত্যু শয্যায় বাবা-ছেলে, গ্রেফতার ১

received_398753714441561

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ায় বাঁশ ব্যবসাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় বাবা-ছেলে গুরুতর আহত হয়েছে। এঘটনায় বাদী পক্ষের দায়ের করার মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করেছে। অপরদিকে চমেক হাসপাতালের আহত ছেলে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে থাকলেও বাদী পক্ষকে নানাভাবে হুমকি ধমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের বেতুয়াবাজার ব্রীজ এলাকায় ঘটেছে এ ঘটনা।
বাদীর অভিযোগ ও মামলার আর্জি সূত্রে জানাগেছে, বেতুয়াবাজার ব্রীজ এলাকায় বাঁশের ব্যবসা করে সংসার চালান পূর্ববড়ভেওলা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ব্রাক্ষ্মণপাড়া গ্রামের মৃত সৈয়দ আহমদের পুত্র মোজাফ্ফর আহমদ। কিন্তু ওই স্থানে বাঁশের ব্যবসা করেন কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ছোট ভেওলা (সিতারখিল) গ্রামের মৃত ফকির মোহাম্মদের পুত্র নজির আহমদ গং। ব্যবসায়ীক প্রতিপক্ষের বাঁশ বিক্রেতারা ক্ষুদ্ধ হয়ে নানাভাবে বিরোধ, ক্রেতাদের বাধাদানসহ হয়রাণী চালিয়ে আসছিলো।

সর্বশেষ গত ৯আগষ্ট সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কয়েকজন ক্রেতা বাঁশ ক্রয় করতে গেলে তাতে প্রতিপক্ষরা বাধা সৃষ্টি করে। বাধা দেয়ার কারণ কি জানতে চাইলে অতর্কিত অবস্থায় ধারালো অস্ত্র- ছোরা নিয়ে হামলা চালায়। হামলায় ব্যবসায়ী মোজাফ্ফর আহমদের পুত্র মোস্তাহিদুল হাবিব মিসকাত (১৬)কে পেছন দিকে পীঠে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে হত্যার চেষ্টায় ছোরা দিয়ে উপর্যপুরি আঘাত করে। তাকে বাঁচাতে পিতা ব্যবসায়ী মোজাফ্ফর আহমদ (৬৫) এগিয়ে গেলেও তাকেও মারধরে জখম করে। ওই সময় আহত ব্যবসায়ীর কাছে রক্ষিত নগদ ৫০ হাজার টাকাও ছিনিয়ে নেয়। ঘটনাস্থলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে গিয়ে আহত বাবা-ছেলেকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ছেলে মোস্তাহিদুল হাবিব মিসকাতের অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণে অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করেন। সেখানেও নিয়ন্ত্রণ না আসায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। ৩১আগষ্ট পর্যন্তও সুস্থ হয়ে উঠতে পারেনি। এনিয়ে হামলাকার শিকার পরিবারের মৃত সৈয়দ আহমদের পুত্র মোজাফ্ফর আহমদ বাদী হয়ে গত ১৫ আগষ্ট’২০ইং চকরিয়া থানায় মামলা (নং ১৬, জিআর ৩৫১/২০) দায়ের করেন। মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামী নজির আহমদের পুত্র ইলিয়াছকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো: সিরাজুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশ এ অভিযান চালায়। মামলার অপরাপর আসামীরা হলো; নজির আহমদের ছেলে কামাল উদ্দিন, জামাল উদ্দিন, এহেছান ও তাদের পিতা নজির আহমদ। বর্তমানে বাদীকে মামলা তুলে নিতে হুমকি ধমকি দিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে আসামীরা। ভূক্তভোগী পরিবার প্রশাসনের কাছে আইনী সহায়তা চেয়েছেন।##

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।