চকরিয়ার বদরখালী গোঁয়ারফাঁড়ি খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণে তোড়জোড়

4-PIC-03-10-2020-600x337
চকরিয়া অফিস:
চকরিয়া উপজেলা উপকূলীয় ইউনিয়ন বদরখালীতে খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণের তোড়জোড় চালাচ্ছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র। গত ক‘দিন ধরে বদরখালীর প্রধান সড়ক সংলগ্ন কালভার্ট পয়েন্টে গোঁয়ারফাঁড়ি খালে চালানো হচ্ছে এ দখল কার্যক্রম।
জানাগেছে, উপজেলার বদরখালী সমবায় উপনিবেশ সমিতির আওতাধীন মাতামুহুরী শাখা নদী গোঁয়াফাঁড়ির মিঠা পানির খালে বদরখালী-মহেশখালী কেবি জালাল উদ্দিন সড়কের (আহমদ কবিরের ঘাট) কালভার্ট পয়েন্টে গোঁয়ারফাঁড়ি খালের বিস্তির্ণ এলাকার জুড়ে গড়ে উঠেছে আধাপাকা বাড়িঘরসহ বিভিন্ন স্থাপনা। বর্তমানে ওই এলাকায় বদরখালী ২নং ওয়ার্ডের নয়াপাড়ার বাসিন্দা মৃত কালুমিয়ার পুত্র নুরুল কাদের প্রভাব খাটিয়ে দোকানঘর নির্মাণ করে যাচ্ছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিগত ২০১৩ সালের শুরুর দিকে খালে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ পেয়ে সরেজমিন পরিদর্শন করেন পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজারের একটি দল। এতে নেতৃত্ব দেন তৎসময়ের সহকারী পরিচালক সরদার শরীফুল ইসলাম। তিনি পরিদর্শন পরবর্তী ২০১৩ সালের ৬ জানুয়ারি ৮জনের নাম উল্লেখ করে বিষয়টি নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক একটি অভিযোগ পরিবেশ অধিদপ্তর ঢাকার মহাপরিচালক বরাবরসহ একই দপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক, ঢাকা সদরের এনফোর্সমেন্ট পরিচালক, জেলা প্রশাসক কক্সবাজার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার চকরিয়া, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চকরিয়াসহ স্থানীয় সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অনুলিপি জমা দেন। এর আলোকে ওই খালে কোনধরনের স্থাপনা নির্মাণ না করতে নিষেধ করেন সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। এরপর থেকে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ থাকলে ফের শনিবার ৩ অক্টোবর গোঁয়ারফাঁড়ি খালে পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে দোকানঘর নির্মাণ করছে স্থানীয় নুরুল কাদের গং। বর্তমানে ওই দোকান নির্মাণ কাজ অব্যাহত রয়েছে।
এদিকে ওই খাল দিয়ে নৌ-যোগে স্থানীয়রা বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন মালামাল আনা নেয়া করে থাকেন। কিন্তু এ খালটি সংকীর্ণ হয়ে গেলে বর্ষা মৌসুমে বন্যার পানিতে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়। এতে করে একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম নৌ-পথটি অচল হয়ে পড়ার শংকায় রয়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির সেক্রেটারি নুরুল আমিন জনি জানান, মাতামুহুরী শাখা নদী গোঁয়ারফাঁড়ী খালটি বদরখালী সমিতির আওতাভূক্ত। সমিতি খাল দখলের বিষয়টি অবগত হয়েছি। সমিতির পক্ষ থেকে লোকজন দিয়ে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অপরদিকে অভিযুক্ত খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণকারী নুরুল কাদেরের কাছে এ বিষয়ে জানতে মোবাইলে একাধিকবার চেষ্টা করেও সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।##
বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।