সর্বশেষ শিরোনাম
চকরিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি’র নিম্ন আদালতে স্থায়ী জামিন লাভচকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আকিত’র নেতৃত্বে শুকনো খাবার বিতরণচকরিয়ায় বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসে শ্রেষ্ট্র পরিদর্শিকার সম্মাননা পেলেন তসলিমা খানম মিনুচকরিয়ার দুই ইউপি উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে ১২ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দচকরিয়ায় শিক্ষার্থীদের হাতে শিক্ষা উপকরণ বিতরণচকরিয়ায় উচ্চ অাদালতের নিষেধাক্ষা অমান্য, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জমি জবর দখল চেষ্টাসাংবাদিক আবদুল মজিদের বিরুদ্ধে চকরিয়ার এসিল্যান্ডের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার দাবীতে জাতীয় প্রেসক্লাবে মানববন্ধনএমপি জাফর আলমের প্রচেষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেলেন ২৫ অসুস্থ ব্যক্তিডুলাহাজারা ইউনিয়ন ছাত্রদলের ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন।চকরিয়া উপজেলা বিএনপি কমিটি বিলুপ্ত, আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন

চকরিয়া পৌরসভার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মানসিক ভারসাম্যহীনবোনকে আটকে রেখে জমি রেজিষ্ট্রি নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ

[post-views]

majeda begum, chakaria

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়া পৌর এলাকায় মানসিক ভারসাম্যহীন বোনকে আটকে রেখে সহায় সম্পত্তি নিজ নামে করে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে আপন ভাই ওসমান গনি নামে পৌরসভার এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। এনিয়ে অভিযুক্ত ওসমানের বিরুদ্ধে পৌরসভার মেয়র বরাবরে লিখিত অভিযোগ ও চকরিয়া আদালতে জিডি (কোর্ট ডায়েরী) করেছেন ভাগিনা আবুল বশর খোকন ও ভাগনি সেলিনা আক্তার।
অভিযোগে জানাগেছে, চকরিয়া পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ডের পালাকাটা খোন্দকারপাড়া গ্রামের মো: হাসেমের মেয়ে মাজেদা বেগমের সাথে বিয়ে হয় একই এলাকার মৃত আবুল কাসেমের পুত্র জামাল উদ্দিনের। সংসারে ১ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে। সন্তানদের বয়স ৫ বছর পযর্ন্ত হলে মা মাজেদা খাতুন মানসিক ভারসাম্য হয়ে পড়লে পিতা অন্যত্রে আরেকটি বিয়ে করে চলে যান। পিতার সাথে ২ সন্তান থাকলেও সৎ মা সন্তাননের নির্যাতন চালিয়ে পিতার বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন ২ সন্তানকে। বর্তমানে সন্তানরা পূর্ণ বয়স্ক হলে থাকেন ভাড়া বাসায়। কন্যা সন্তানটি চট্টগ্রামের গার্মেন্টসে চাকুরী করেন, ছেলে সন্তানটি মাছের চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। অভিযোগ উঠেছে, মানসিক ভারসাম্যহীন মাকে সন্তানদের বাসায় নিয়ে আসতে চাইলে সম্পত্তির লোভে পড়ে আপন মামা পৌরসভার কর্মকর্তা ওসমান গনি তার কোরক বিদ্যাপীঠ সংলগ্ন মালেক টাওয়ারের ভাড়া বাসায় রেখে দেন এবং সেখানে দাসীর মতো কাজে ব্যবহার করছেন। সম্প্রতি ওই বাড়ি থেকে অজানার উদ্দেশ্যে নিরুদ্দেশ হয়ে গেলে অনেক খুজাখুজির পর দীর্ঘ ১২দিনের মাথায় খোজ পান এবং বাড়িতে ফিরে আসেন। এদিকে সন্তানরা মাকে ফিরে পেতে গত ২৭ জুন’১৮ইং চকরিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে জিডি (কোর্ট দায়েরী) নং ১৪০/১৮ দায়ের করেন মামা ওসমান গনির বিরুদ্ধে। মায়ের নামে পৈত্রিক সহায় সম্পত্তি এবং ছেলের মালিকানাধীন চিংড়ি প্রকল্পের স্ট্যাম্প জব্দ করে রাখতে নানা কৌশলে মেতে উঠেছেন। এমনকি মাকে একনজর দেখার সুযোগও দিচ্ছেননা পাষন্ড মামা। হতভাগা সন্তানরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ পূর্বক মানসীকভারসাম্যহীন মাকে ফিরে পেতে আকুল আবেদন জানিয়েছেন।
অপরদিকে এ প্রসঙ্গে পৌরসভার কর্মকর্তা ওসমান গনির কাছে জানতে চাইলে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, তার বোন মানসীক ভারসাম্যহীন রোগি। তাকে প্রতি সাপ্তাহে ইনজেক্সন দিতে হয় এবং নিয়োমিত ডাক্তার দেখাতে হয়। তাই সুষ্ঠু চিকিৎসার স্বার্থে বোনকে তার কাছে রেখেছেন। এছাড়াও তিনি ভাগিনা-ভাগনির প্রতি কোন ধরণের অন্যায় করবেননা এবং তার বোনের সহায় সম্পত্তির প্রতি কোন ধরণের লোভ নাই বলেও জানান।

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।