সর্বশেষ শিরোনাম
চকরিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি’র নিম্ন আদালতে স্থায়ী জামিন লাভচকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আকিত’র নেতৃত্বে শুকনো খাবার বিতরণচকরিয়ায় বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসে শ্রেষ্ট্র পরিদর্শিকার সম্মাননা পেলেন তসলিমা খানম মিনুচকরিয়ার দুই ইউপি উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে ১২ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দচকরিয়ায় শিক্ষার্থীদের হাতে শিক্ষা উপকরণ বিতরণচকরিয়ায় উচ্চ অাদালতের নিষেধাক্ষা অমান্য, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জমি জবর দখল চেষ্টাসাংবাদিক আবদুল মজিদের বিরুদ্ধে চকরিয়ার এসিল্যান্ডের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার দাবীতে জাতীয় প্রেসক্লাবে মানববন্ধনএমপি জাফর আলমের প্রচেষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর অনুদান পেলেন ২৫ অসুস্থ ব্যক্তিডুলাহাজারা ইউনিয়ন ছাত্রদলের ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন।চকরিয়া উপজেলা বিএনপি কমিটি বিলুপ্ত, আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন

চকরিয়ার রিংভংয়ে মন্দিরের জমি জবর দখল চেষ্টার প্রতিবাদে সম্প্রদায়ের বিক্ষোভ

[post-views]

chakaria dulahjara 15-4-19

মিফতাব উদ্দিন চৌধুরী,চকরিয়া
চকরিয়ার সার্বজনীন হরি মন্দিরের পুকুরের জমি জবর দখল চেষ্টা ও দখলবাজদের হামলায় পুজারী ২ নারীকে আহত করার প্রতিবাদে সম্প্রদায়ের লোকজন বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। ১৪ এপ্রিল বিকাল ৪টার দিকে উপজেলার ডুলাহজারা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের মালুমঘাট সুয়াজানিয়া দক্ষিণ পাড়া (জলদাশ পাড়ায়) বিক্ষোভ প্রদর্শনের এ ঘটনা ঘটেছে। এনিয়ে সার্বজনীন হরিমন্দির কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় মৃত সুধর্ন্ন জলদাশের পুত্র মনিন্দ্র জলদাশ (৬৫) বাদী হয়ে এদিন রাতে থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে; মৃত কালা রাম জলদাশের পুত্র ফুলমোহন জলদাশ, মৃত কাশিরাম জলদাশের পুত্র অন্তর জলদাশ, ফুলমোহন জলদাশের পুত্র সজল জলদাশ, নিকুঞ্জু জলদাশের পুত্র চিত্তমোহন জলদাশ, ফুলমোহন জলদাশের পুত্র কাজল জলদাশ, মৃত ফুলিন জলদাশের পুত্র মঙ্গল জলদাশ, ফুল মোহন জলদাশেল পুত্র শিমুল জলদাশ, আনন্দ জলদাশের পুত্র খোকন জলদাশসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।
স্থানীয় ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড এমইউপি রফিক আহমদ জানিয়েছেন, অভিযুক্তরা সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে সার্বজননীয় হরিমন্দির বৈধ মালিকানাধীন পুকুরের জমি জবর দখলে নেওয়ার পায়াতারা চালিয়েছে। ইতিপূর্বেও ওই পুকুরের ওই জমি ব্যবহার করতেন সার্বজনিন হরিমন্দির কমিটি ও সম্প্রদায়ের লোকজন। মন্দির কমিটি ও জলদাশ সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে ওই চাওয়ায় একজন মুসলিম হিসেবে স্থানীয় মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র নুরুল হোছন বিগত ২০১৭সনের ৬ নভেম্বর চৌহর্দ্দী সহকারে ওই ১৪শতক জমি মন্দিরের জন্য দান করেছিলেন। এছাড়াও অপরাপর ২৮জন ব্যক্তি আরো ২৩ কড়া জমি মন্দিরের জন্য দিয়েছেন। এরপরও করে জগন্নাত মন্দিরের নাম ভাঙ্গিয়ে জমি দাবী করলে তা হবে সম্পূর্ণ অন্যায়।
মন্দির কমিটির সভাপতি মনিন্দ্র জলদাশ জানিয়েছেন, অভিযুক্তরা প্রকাশ্য দিবালোকে হামলা, ভাংচুর ও ভয়ভীতি প্রদর্শন অব্যাহত রেখেছেন। পুকুরে পূজা করতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছেন তাদের দুইজন পূজারী নারী। তিনি আরো বলেন, তাদের সার্বজনীন মন্দিরটি সরকারের ধর্মমন্ত্রণালয়ের হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের অনুমোদনপ্রাপ্ত তালিকাভূক্তি নং কক্স/২০৯/১১। এমনকি মন্ত্রণালয় থেকে মন্দিরের জন্য সরকারিভাবে অনেক বরাদ্দও পেয়েছেন। মূলত: তাদের সার্বজনীন মন্দির অগ্রগতি সহ্য করতে না পেরে বিগত কয়েক বছর আগে শুধুমাত্র কয়েকটি পরিবারের জন্য জগন্নাত মন্দির নামে একটি মন্দির স্থাপন করে তাদের সার্বজনীন হরিমন্দিরের নামীয় পুকুরের জমি জবর দখলের পায়তারা চালাচ্ছে। রাতের আধারে জগন্নাত মন্দিরের নামে সাইন বোর্ড টাঙ্গিয়ে জবর দখলের চেষ্টা করলে সার্বজনীন হরি মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দ ও জলদাশ সম্প্রদায়ের লোকজন উক্ত ভিত্তিহীন সাইনবোর্ড সরিয়ে ফেলে। বিষয়টি পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ সরেজমিনে পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন। এদিকে তারা বিক্ষোভকালে জগন্নাত মন্দিরের নামে অবৈধ দখলবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন সম্প্রদায়ের লোকজন।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানিয়েছেন, ঘটনার বিষয়ে তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। ইতিপূর্বে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রেখেছেন। তিনি বিষয়টি পূজা উদযাপন পরিষদের নেতাদের সাথে কথা বলে সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আর সমাধান না হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।