সর্বশেষ শিরোনাম
চাকমারকুল মাদরাসার মুহতামিমসহ ৫ শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় ক্ষোভ-নিন্দাশেখ হাসিনার সরকার চকরিয়া-পেকুয়ার বন্যাদুর্গত জনপদে ক্ষয়ক্ষতি লাগবে উদ্যোগ নেবে-এমপি জাফর আলমচকরিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি স্থায়ী জামিন পাওয়ায় ফুলেল ভালবাসায় সিক্তসাহারবিল আনওয়ারুল উলুম কামিল মাদরাসায় আলিমে ৯৬% পাশবদরখালী আজমনগর বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগচকরিয়ায় বন্যা দূর্গতদের মাঝে ৩য় দফায় আছিয়া-কাশেম ট্রাস্টের ত্রাণ ও খাবার বিতরণফাঁসিয়াখালী ইউপি’র উপ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিক শাহেদের সংবাদ সম্মেলনচকরিয়ায় পরোয়ানাভূক্ত সাবেক কাউন্সিল নুর হোসেন ও ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত যুবলীগ নেতা মঈনুদ্দিন গ্রেফতারহিন্দু ধর্ম থেকে পবিত্র ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে সনজিত দাশ এখন মোঃ ইব্রাহিমচকরিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি’র নিম্ন আদালতে স্থায়ী জামিন লাভ

চকরিয়ায় চার লেনে নতুন সড়ক নির্মাণেক্ষতিপূরণে টাকা হরিলুট শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ

[post-views]

Protibad_1

১০মে’১৯ইং দৈনিক বাকখালী পত্রিকায় “চকরিয়ায় চার লেনে নতুন সড়ক নির্মাণ প্রকল্প, ক্ষতিপূরণে কোটি টাকা হরিলুটের আয়োজন”শীর্ষক প্রকাশিত সংবাদটি আমাদের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন, কাল্পনিক ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। সংবাদের সাথে বাস্তবতার কোন মিলনাই। এলাকার কিছু কুচক্রি মহল পরিকল্পিত মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুদের মাধ্যমে ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচারে ইন্ধন যুগিয়েছে। কাগজপত্র পর্যালোচনা ও সরে জমিনে তদন্ত করলে প্রকৃত সত্যতা পাওয়া যাবে। তাই প্রকাশিত মিথ্যা সংবাদ নিয়ে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছি। প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে; সংবাদে উল্লেখিত মাতারবাড়ি থেকে বদরখালী হয়ে চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী পযর্ন্ত যে ২৫ কিলোমিটার আয়তনের নতুন চার লেন সড়কের কথা বলা হয়েছে, তা এই সড়কটি নয়। ওই সড়কের জমি অধিগ্রহণ করা হলেও জমির মালিক পক্ষকে এখনো পযর্ন্ত কোন নোটিশও দেওয়া হয়নি, ক্ষতিপূরণের টাকা বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়নি। কিন্তু ষড়যন্ত্রকারী কুচক্রি মহল না যেনে ওই সড়কের কথা সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করেছেন, যার কারণে এই সংবাদটি শতভাগ মিথ্যাই প্রমাণিত হল। মূলত: এই সড়কটি হচ্ছে; বদরখালী-মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎ সড়ক সম্প্রসারণ করতে গিয়ে পুরাতন সড়ক লাগোয়া কিছু পরিমাণে জমি প্রয়োজন হচ্ছে। তারই আলোকে বদরখালী সমিতির ৪নং খতিয়ানের ৪৫৯০ দাগের কিছু জমি আমাদের নামে বরাদ্ধকৃত ও শান্তিপূর্ণ ভোগ দখলে থাকা জমি মাতারবাড়ি-বদরখালী কয়লা বিদ্যুৎ সড়কের অধিগ্রহণে পড়ে যায়। ওই জমিতে আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসতবাড়িও রয়েছে। কিন্তু সড়ক সম্প্রসারণে অধিগ্রহণে আমরা নির্দিদায় জমি ছেড়ে দেওয়ার কারণে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের এলএ শাখা এবং তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা সিসিডিবি’র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জরিপে আমাদের ভোগ দখল ও কাগজপত্রে প্রমাণিত হওয়ার পর জমির ক্ষতিপূরণ নেওয়ার জন্য আমাদের নামে নোটিশ ইস্যু করেন। এর আলোকে আমরা ভোগ দখলরত জমি মালিকগন জমিতে স্থিত অবকাঠামো’র ক্ষতিপূরণ বাবৎ প্রায় ৫৩ লাখ টাকা উত্তোলন করেছি। কিন্তু জমির ক্ষতিপূরণ উত্তোলন করবো বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির মাধ্যমে। অথচ: সংবাদে যেসব মিথ্যাচার করা হয়েছে, তা অত্যন্ত দু:খজনক। অপরদিকে সংবাদে তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা সিসিডিবি’র কর্মকর্তা মো: আবদুর রাজ্জাক এবং বৃহত্তর সমবায় প্রতিষ্ঠান বদরখালী সমবায় সমিতিকে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ঘায়েল করা হয়েছে। তাই প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে প্রশাসন ও এলাকাবাসীসহ সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছি এবং সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
প্রতিবাদকারী- আমির হোসেন পিতা মৃত হাজী গুরা মিয়া,
নুরুল ইসলাম পিতা সোলতান আহমদ, বদরখালী,চকরিয়া, কক্সবাজার।

বিভাগের সংবাদ।

নিউজ ডেস্ক, চকরিয়া২৪।